কোর্স ৫০৬ ও ৫০৭ পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীকে সরাসরি অভিযোগ জানান/সময় লাগবে মাত্র ২ মিনিট

NIOS NEWS

লক্ষ্য মাত্র ১ লক্ষ

(নিজেদের স্বার্থে শেয়ার করুন)

আপনাদের সমর্থন ছাড়া এটা সম্ভব নয় ! বুঝিয়ে দেন আমরা সেই বাঙালির উত্তরসুরি যাকে বিশ্ব শাসনকারী ইংরেজরা পর্যন্ত ভয় করত ! তিনি নেতাজি ! আমরা সেই বাঙালি যাদের একজন অবাঙালি বলতে বাধ্য হয়েছিল “আজ বাংলা যা ভাবে , ভারত তা কালকে ভাবে”

এই খোলাচিঠিটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছে দিন

এর জন্য সময় লাগবে মাত্র ২ মিনিট

কিভাবে করবেন সাহায্যের জন্য ভিডিওটি দেখুন-
https://youtu.be/TDo7Ku7RLZ4

NIOS NEWS

An open letter to Indian Prime Minister Narendra Modi

NIOS DELED 506 ও 507 কোর্সের পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে আর্জি

মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না ।

ইতি
পশ্চিমবঙ্গের সকল শিক্ষকের প্রতিনিধিত্বে
আমি একজন বিচারপ্রার্থী শিক্ষক

10 thoughts on “কোর্স ৫০৬ ও ৫০৭ পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীকে সরাসরি অভিযোগ জানান/সময় লাগবে মাত্র ২ মিনিট

  • December 30, 2018 at 1:28 pm
    Permalink

    Noexam

    Reply
    • January 16, 2019 at 8:23 pm
      Permalink

      NIOS DELED 506 ও 507 কোর্সের পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে আর্জি

      মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

      গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
      এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
      ১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
      ২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
      ৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
      আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না ।

      ইতি
      পশ্চিমবঙ্গের সকল শিক্ষকের প্রতিনিধিত্বে
      আমি একজন বিচারপ্রার্থী শিক্ষক

      Reply
  • December 30, 2018 at 9:55 pm
    Permalink

    মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

    গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
    এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
    ১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
    ২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
    ৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
    আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না

    Reply
  • December 31, 2018 at 3:41 pm
    Permalink

    NIOS DELED 506 ও 507 কোর্সের পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে আর্জি

    মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

    গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
    এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
    ১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
    ২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
    ৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
    আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না ।

    ইতি
    পশ্চিমবঙ্গের সকল শিক্ষকের প্রতিনিধিত্বে
    আমি একজন বিচারপ্রার্থী শিক্ষক

    Reply
  • December 31, 2018 at 3:44 pm
    Permalink

    NIOS DELED 506 ও 507 কোর্সের পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে আর্জি

    মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

    গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
    এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
    ১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
    ২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
    ৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
    আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না ।

    ইতি
    পশ্চিমবঙ্গের সকল শিক্ষকের প্রতিনিধিত্বে
    আমি একজন বিচারপ্রার্থী শিক্ষক

    Reply
  • December 31, 2018 at 3:46 pm
    Permalink

    NIOS DELED 506 ও 507 কোর্সের পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে আর্জি

    মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

    গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
    এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
    ১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
    ২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
    ৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
    আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না ।

    ইতি
    পশ্চিমবঙ্গের সকল শিক্ষকের প্রতিনিধিত্বে
    আমি একজন বিচারপ্রার্থী শিক্ষক

    Reply
  • December 31, 2018 at 3:47 pm
    Permalink

    NIOS DELED 506 ও 507 কোর্সের পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে আর্জি

    মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

    গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
    এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
    ১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
    ২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
    ৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
    আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না ।

    ইতি
    পশ্চিমবঙ্গের সকল শিক্ষকের প্রতিনিধিত্বে
    আমি একজন বিচারপ্রার্থী শিক্ষক

    Reply
  • December 31, 2018 at 3:50 pm
    Permalink

    NIOS DELED 506 ও 507 কোর্সের পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে আর্জি

    মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

    গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
    এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
    ১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
    ২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
    ৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
    আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না ।

    ইতি
    পশ্চিমবঙ্গের সকল শিক্ষকের প্রতিনিধিত্বে
    আমি একজন বিচারপ্রার্থী শিক্ষক

    Reply
  • January 16, 2019 at 8:26 pm
    Permalink

    NIOS DELED 506 ও 507 কোর্সের পরীক্ষা বাতিলের বিরুদ্ধে আর্জি

    মহাশয় অত্যন্ত বিপদের মধ্যে আপনার স্মরনাপন্ন হয়েছি । আমরা চাই সুবিচার । আমরা মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধিনস্ত NIOS থেকে DELED করছি । আমরা সকলেই পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা প্রায় ১.৫ লক্ষেরও উপর শিক্ষক এই ট্রেনিংটির সাথে যুক্ত । আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অত্যন্ত অন্যায় করা হচ্ছে । এবং সুবিচারের আশায় এবিষয়ে আপনার হস্তক্ষেপ চাইছি ।

    গত ২০ ডিসেম্বর এবং ২১ ডিসেম্বর , ২০১৮ আমাদের DELED কোর্স ৫০৬ এবং ৫০৭ এর পরীক্ষা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ২৬ শে ডিসেম্বর NIOS এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জনবিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা বাতিল করা হয় ।
    এখানে আমাদের কয়েকটি বক্তব্য আছে । অত্যন্ত আশার নিয়ে সুবিচারের আশায় সেগুলি লিপিবদ্ধ করছি –
    ১. আমাদের প্রধান বক্তব্য কোন বিষয় তদন্ত সম্পুর্ন হওয়ার আগেই কিভাবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় ! তাই এখন পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত বদল করতে হবে । তদন্ত সম্পূর্ণ হওয়ার পর এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে হবে ।
    ২. যদি তদন্তে প্রমানিত হয় যে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল সেটি দুইভাবে হতে পারে । প্রশ্নপত্রের Softcopy অথবা Hardcopy . যদি softcopy ফাঁস হয় সেক্ষেত্রে তা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছিল । সেক্ষেত্রে সমগ্র দেশজুড়ে সেটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তাই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গোটা দেশজুড়ে নিতে হবে । এক্ষেত্রে অনেকক্ষেত্রে বলা হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য অনুসারে প্রশ্ন আলাদা হয় । আমরা চাই এই বিষয়টির উপরও সঠিক তদন্ত হোক । যদি দেখা যায় বিভিন্ন রাজ্যের প্রশ্নপত্রের মধ্যে মিল রয়েছে সেক্ষেত্রে সেইসকল রাজ্যে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । তবে এই প্রমাণের বিষয়টি সম্পুর্ন তদন্ত সাপেক্ষ ।
    ৩। যদি প্রমানিত হয় Hardcopy ফাঁস হয়েছিল তাহলে সেক্ষেত্রে তদন্ত হোক যে যে কেন্দ্রে ফাঁস হয়েছিল সেইসকল কেন্দ্রে পরীক্ষা বাতিল করতে হবে । সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে নয় ।
    আমরা মনে করি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের উপর অত্যন্ত অবিচার করা হচ্ছে । আমরা চাই এই বিষয়ে সঠিক বিচার হোক । দোষীরা শাস্তি পাক । কিন্তু যারা নির্দোষ তাদের এভাবে ভোগান্তি হবে কেন ? আমরা মনে করি NIOS নিজের সুনাম রক্ষার্থে শুধুমাত্র অভিযোগের উপর ভিত্তি করে এই ধরনের অবিবেচক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না । তাই আমরা আপনার কাছ থেকে সুবিচার চাই । আশা রাখি আপনি পশ্চিমবঙ্গের অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকদের আশাহত করবেন না ।

    ইতি
    পশ্চিমবঙ্গের সকল শিক্ষকের প্রতিনিধিত্বে
    আমি একজন বিচারপ্রার্থী শিক্ষক

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *